২৫ জুলাই, ২০১৬

কিভাবে একটি ব্লগের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি করবেন?

কিভাবে একটি ব্লগের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি করবেন?
4/ 5 stars - "কিভাবে একটি ব্লগের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি করবেন?" প্রত্যেক ব্লগের এ্যাডমিন তার নিজের প্রিয় ব্লগটিকে সবার কাছে একটি জনপ্রিয় ব্লগ হিসেবে উপস্থাপন করতে চান। সবাই আশা করেন তার ব্লগটি সকলের কাছ...
-
প্রত্যেক ব্লগের এ্যাডমিন তার নিজের প্রিয় ব্লগটিকে সবার কাছে একটি জনপ্রিয় ব্লগ হিসেবে উপস্থাপন করতে চান। সবাই আশা করেন তার ব্লগটি সকলের কাছে জনপ্রিয় ব্লগ হিসেবে স্বীকৃতি পাবে। তবে একজন ওয়েব ডেভেলপারের/ব্লগারের পক্ষে এই কাজটি করা খুব কঠিন একটা বিষয়। একজন ব্লগার সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এবং আরো অন্যান্য কৌশল অবলম্বনের মাধ্যমে যদিও একটি ব্লগে পর্যাপ্ত ট্রাফিক পেতে সক্ষম হন কিন্তু খুব কম সংখ্যক লোক ব্লগের জনপ্রিয়তা তৈরিতে সফল হতে পারেন। কারন ব্লগে ট্রাফিক/ভিজিটর পেলেই একটি ব্লগ জনপ্রিয় হয়ে উঠে না। একটি ব্লগকে সবার কাছে জনপ্রিয় এবং গ্রহনযোগ্য করে তুলার জন্য ব্লগ এ্যাডমিন ও ব্লগের বিভিন্ন বিষয়ে কিছু অসাধারন গুনাবলীর প্রয়োজন হয়।
কিভাবে একটি ব্লগের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি করবেন?
আপনি হয়ত ভাবতে পারেন কারো ব্লগে পর্যাপ্ত ট্রাফিক থাকলেই ব্লগটি সবচাইতে জনপ্রিয় ব্লগ হয়ে উঠবে। আসলে Traffic এবং জনপ্রিয়তা শব্দ দুটির মধ্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে। সাধারনত আপনি লক্ষ্য করলে দেখতে পাবেন যে, অন-লাইনে অনেক ব্লগ রয়েছে যারা ইউটিব থেকে কিছু জনপ্রিয় ভিডিও বাছাই করে ভিডিওটির একটি আকর্ষণীয় এবং কৌতুহলী টাইটেল প্রদানের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের Social Media-তে লিংক শেয়ার করার মাধ্যমে প্রচুর পরিমানে ভিজিটর পেয়ে যান। এ ধরনের ব্লগের পর্যাপ্ত ট্রাফিক থাকার কারনে র‌্যাংকিংও ভাল অবস্থানে থাকে। তবে খুব কম সংখ্যক ভিজিটর পরবর্তীতে পুনরায় এই টাইপের ব্লগে ভিজিট করেন। ঠিক একইভাবে আরও অন্যান্য টপিকের ব্লগ রয়েছে যারা বিভিন্ন কৌশল খাঠিয়ে ব্লগে পর্যাপ্ত ট্রাফিক পেয়ে যান, তবে ভিজিটরদের ব্লগে ধরে রাখতে বা ব্লগের জনপ্রিয়তা তৈরি করতে সক্ষম হন না।

একটি ব্লগে ট্রাফিক থাকার পাশাপাশি যখন ভিজিটরদের কাছে ব্লগের জনপ্রিয়তা এবং গ্রহনযোগ্যতা বৃদ্ধি পবে, তখনই আপনার ব্লগিং করার উদ্দেশ্য পরিপূর্ণ হয়েছে বলে ধরে নিতে পারেন। আপনাকে সব সময় একটা বিষয় মাথায় রাখতে হবে, শুধুমাত্র ট্রাফিক বৃদ্ধি করার মাধ্যমে অন-লাইন হতে আয় করাটাই ব্লগিংয়ের মূখ্য উদ্দেশ্য নয়। আপনার ব্লগের কনটেন্টের মাধ্যমে কিছু নিত্য নতুন বিষয় শেয়ার করে সবাইকে শেখানোটা হবে আপনার মূল উদ্দেশ্য। পক্ষান্তরে যখন আপনার ব্লগের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাবে, তখন ব্লগের ট্রাফিক এবং ব্লগ থেকে আয় করার বিষয়টা নিয়ে কোন চিন্তা করতে হবে না। কারণ যে কোন জিনিসের সুনাম বা জনপ্রিয়তা ঐ বিষয়ের মাধ্যমে একজন্য ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে সফলতার দ্বারপ্রান্তে পৌছে দেবে। আমার ব্লগিং ক্যারিয়ারের দীর্ঘ অভীজ্ঞতা থেকে একটি ব্লগের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধিতে সহায়ক কয়েকটি বিষয় আপনাদের সাথে শেয়ার করব।

Attractive ব্লগ ডিজাইনঃ

সুন্দর্যের প্রতি সব মানুষের আকর্ষণ রয়েছে। মানুষ জন্মগতভাবে সুন্দরের পূজারী। ঠিক একইভাবে একটি আকর্ষণীয় ডিজাইনের ব্লগ যে কোন লোককে ব্লগের প্রতি আকর্ষণ করাতে পারে। একটি আকর্ষণীয় ইউনিক ডিজাইনের ব্লগ একটি ব্লগের ব্যক্তিত্বের প্রকাশ করে। কিন্তু বেশীরভাগ ব্লগারদের ক্ষেত্রে দেখা যায় অন-লাইনে বহুল ব্যবহৃত ফ্রি টেমপ্লেটগুলি ডাউনলোড করে ব্যবহার করছেন। বিষয়টি আপনি ভালভাবে চিন্তা করলে বুঝতে পারবেন যে, অন-লাইনে ১০০ জনের ব্যবহৃত ব্লগার টেমপ্লেটটি দিয়ে কিভাবে পাঠকদের ব্লগের ডিজাইনের প্রতি আকৃষ্ট করতে সমর্থ হবেন? এ ক্ষেত্রে ১০০ জনের ব্যবহৃত টেমপ্লেট দিয়ে ব্লগের Interface এর প্রতি কোনভাবেই পাঠকদের আকর্ষণ করাতে পারবেন না। বরংচ অধিক ব্যবহৃত একই ডিজাইনের ব্লগের কারনে পাঠকের কাছে আপনার ব্লগের গ্রহযোগ্যতা কমে যাবে।

আপনি যদি ওয়েব ডিজাইন সম্পর্কে দক্ষতা সম্পন্ন হন, তাহলে ব্লগিং শুরু করার পূর্বে ব্লগের ডিফল্ট টেমপ্লেটগুলির যে কোন একটিকে Customize করে সবার থেকে একটু ভিন্নরূপে তৈরি করতে পারেন। তবে আপনি যদি ওয়েব ডিজাইন করা না জানেন, তাহলে কোন ভালমানের ডেভেলপারের কাছ থেকে অর্ডার করে কিছু টাকার বিনিময়ে শুধুমাত্র আপনার জন্য একটি টেমপ্লেট ডিজাইন করিয়ে নিতে পারেন। তাহলে সবার থেকে আলাদা এ ধরনের ইউনিক ডিজাইনের ব্লগের প্রতি পাঠকরা অধিক আকৃষ্ট হবে। টেমপ্লেট ডিজাইনের ক্ষেত্রে Responsive ব্যাপারটি অবশ্যই মাথায় রাখবেন। কারন পাঠকরা শুধুমাত্র আপনার ব্লগটি কম্পিউটার থেকে ভিজিট করবে না। সম্প্রতি মোবাইল, স্মার্ট ফোন এবং ট্যাবলেটের ব্যবহার এতই বৃদ্ধি পেয়েছে যে, পাঠকরা তাদের প্রয়োজন এখন কম্পিউটার ব্যবহার না করে এ ধরনের স্মার্ট ডিভাইসের মাধ্যমে সেরে নিচ্ছেন। এ ক্ষেত্রে আপনার ব্লগটিকে Responsive ডিজাইন করলে অধিক পাঠক এবং জনপ্রিয়তা দুটিই পেতে পারেন। তাছাড়া সম্প্রতি গুগলও মোবাইল ফ্রেন্ডলি ব্লগগুলিকে র‌্যাংকিংয়ের ক্ষেত্রে অধিক গুরুত্ব দিচ্ছে।

ভালমানের সাজানো কনটেন্টঃ

সর্বক্ষেত্রেই কনটেন্ট হচ্ছে একটি ব্লগের প্রাণ। আপনি যে বিষয় নিয়েই ব্লগিং করেন না কেন, ব্লগে অবশ্যই সবার থেকে আলাদা এবং ভালমানের কনটেন্ট থাকতে হবে। ব্লগিংয়ের ক্ষেত্রে আমি সবসময় সবাইকে এই বিষয়টির প্রতি অধিক গুরুত্ব দিতে বলি। কোন একটি পোষ্ট লিখার সময় আপনি ঐ লিখাটি সাবার কাছে সুন্দর, সহজ এবং বোধগম্য করে উপস্থাপন করতে পারলে, তখন আপনার লিখাটির প্রতি সবাই আকৃষ্ট হবে। এ ক্ষেত্রে আপনি যে কোন বিষয়ে যুক্তি ও উদাহরনের মাধ্যমে পাঠককে পরিষ্কার ধারনা দিতে পারেন। কারণ পাঠকরা আপানারমত সব বিষয়ে অভীজ্ঞতা সম্পন্ন হবে না। সে ক্ষেত্রে সহজভাবে কোন বিষয় উপস্থাপন করতে পারলে আপনি একজন ভালমানের লেখক হিসেবে স্বীকৃতি পাবেন। আরেকটি বিষয় হচ্ছে, লিখার মধ্যে অবশ্যই ভালমানের পরিপাঠি করা সুন্দর ও স্মার্ট শব্দ থাকলে বিষয়টি আরো ভাল হয়।

ধরুন-আপনার সামনে দু’জন লোক শার্ট, প্যান্ট এবং পায়ে সু পরে ইন করা অবস্থায় দাড়িয়ে আছে। তাদের একজনের শার্ট, প্যান্ট সুন্দরভাবে ইস্ত্রি করা, পায়ের সু ঠিকমত কালি করার পাশাপাশি লোকটির চুল ও দাড়ী কাঠা অবস্থায় সুন্দরভাবে পরিপাঠি করা রয়েছে। পক্ষান্তরে অন্য লোকটির শার্ট, প্যান্ট, সু, চুল ও দাড়ি কোন কিছু সুন্দরভাবে গুছানো নেই। এ ক্ষেত্রে প্রথম লোকটি যেমনি স্মার্ট, সুন্দর এবং একজন ব্যক্তিত্বের অধিকারী লাগবে, উল্টো দিকে দ্বিতীয় লোকটির সবকিছু থাকার পরও জিনিসগুলি পরিপাঠি করা না থাকার কারনে অসুন্দর দেখাবে। ঠিক একইভাবে আপনার ব্লগের কনটেন্টগুলি যদি সুন্দরভাবে সাজিয়ে গুছিয়ে পরিপাঠি করে লিখতে পারেন, তাহলে আপনার লেখার কোয়ালিটির পাশাপাশি ব্যক্তিত্বের একটি ছুয়া পাওয়া যাবে। এ বিষয়টি একজন পাঠককে আপনার ব্লগের কনটেন্টের প্রতি অধিক আকৃষ্ট করতে সক্ষম হবে।

অন্যান্য ব্লগে Gust ব্লগার হওয়াঃ

এটি গুগল ব্লগারের বড় একটা অপশন। এই অপশনের মাধ্যমে সহজে যে কোন ব্যক্তিকে ব্লগের Author হিসেবে যুক্ত করার মাধ্যমে লিখার সুযোগ প্রদান করা যায়। অন-লাইনে অনেক ব্লগ রয়েছে যারা নিয়মিতভাবে বিভিন্ন বিষয়ে Gust ব্লগার নিয়ে থাকে। আপনি যে বিষয়টি নিয়ে ব্লগিং করছেন সেই বিষয়ে ভালমানের ব্লগ গুলিতে একজন Gust ব্লগার হিসেবে যোগ দিতে পারেন। এ ক্ষেত্রে আপনি যদি ভালমানের লেখক হন, তাহলে খুব সহজে ঐ ব্লগের মাধ্যমে আপনার ব্লগটিকে পরিচয় করিয়ে ব্লগের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি করতে পারেন। আপনি যখন Gust ব্লগার হিসেবে ঐ ব্লগটিতে নিয়মিত লিখবেন, তখন তারা আপনার ব্লগের পোষ্টগুলি লিংক করার সুযোগ দেবে। এ ক্ষেত্রে আপনি নিঃসন্দেহে একটি ভালমানের ব্লগ থেকে Dofollow Backlinks তৈরির মাধ্যমে ঐ ব্লগ থেকে আপনার ব্লগটিতে ট্রাফিক বৃদ্ধি করে নিতে পারেন।

কমেন্টের সঠিক প্রতি উত্তর দেয়াঃ

এ বিষয়টি আপনার ব্লগের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধিতে বিশেষ ভূমিকা রাখবে। পাঠক যখন আপনার পোষ্ট পড়বে তখন পোষ্টের কিছু বিষয় হয়ত ঠিকমত বুঝবে না। এ ক্ষেত্রে তারা চাইবে কমেন্টের মাধ্যমে আপনার নিকট থেকে বিষয়টি পরিষ্কারভাবে জেনে নিতে। আপনি যদি কমেন্টের প্রতি-উত্তর প্রদানের মাধ্যমে বিষয়টি সম্পর্কে কমেন্টকারীকে সহজ ও বোধগম্য করে সন্তুষজনক জবাব দিতে পারেন, তাহলে ঐ পাঠক নিঃসন্দেহে আপনার ব্লগটিকে তার প্রিয় ব্লগের তালিকা রেখে Bookmark করে নেবে। এ ছাড়াও কিছু লোক যারা আপনার ব্লগের Contact Form এর মাধ্যমে কিংবা ই-মেইলের মাধ্যমে বিভিন্ন সমস্যা সম্পর্কে সমাধান চাইবে। আপনি বিষয়টি হেলায় ফেলে না দিয়ে, আপনার ব্লগের বিষয়ের সাথে মিল রয়েছে এমন বিষয়গুলি সম্পর্কে যোগাযোগকারীকে সমাধান সম্পর্কে জানাতে পারেন। এ ক্ষেত্রে ঐ লোকটি আপনার এবং আপনার ব্লগের প্রতি সন্তুষ্ট হয়ে ব্লগটিকে প্রিয় তালিকার মধ্যে রেখে দিতে পারে। তবে এ ক্ষেত্রে পাঠকরা কিছুতেই তাদের সীমা অতিক্রম করা উচিত হবে। পাঠকদের উদ্দেশ্যে এ বিষয় আমি দুটি কথা বলে নিচ্ছি।

অনেক ভিজিটর রয়েছেন যারা বিভিন্ন বিষয়ে Facebook, WhatsApp এবং মোবাইলে ফোন করে ব্লগের Author এর কাছে বিভিন্ন বিষয়ে সাহায্য চান। আসলে এ বিষয়টি মোটেও সমিচীন নয়। কারণ ব্লগের Author এরও একটা Personality এবং ব্যস্ততা রয়েছে। এমন নয় সে সবসময় ব্লগ নিয়ে বসে থাকে। এ ক্ষেত্রে আপনার যদি কোন বিষয়ে সমাধান একান্ত প্রয়োজন হয়, তাহলে কমেন্ট, ই-মেইল এবং ফেইসবুক কমিউনিটিতে যোগাযোগ করে আপনার বিষয় সম্পর্কে সাহায্য চাইতে পারেন। এ ক্ষেত্রে ঐ ব্লগের Author এর পাশাপাশি হয়ত অন্য লোকের কাছ থেকেও আপনার কাঙ্খিত বিষয়ে সহজে অল্প সময়ে সমাধান পেয়ে যাবেন।

ব্লগের Communities তৈরি করাঃ

এই বিষয়টি আপনার ব্লগকে সবার কাছে অধিক গুরুত্বপূর্ণ করে তুলবে। আপনি যে বিষয় নিয়ে ব্লগিং করছেন, সেই বিষয়ের ভালমানের অন্যান্য ব্লগগুলির সাথে আপনার ব্লগটির Communities তৈরি করে নিতে পারেন। আপনি অন-লাইনে খোঁজলে খুব সহজে এ ধরনের অনেক ব্লগ পেয়ে যাবেন। তাছাড়া কিছু ভালমানের ব্লগ রয়েছে যেগুলি আপনি সাব্সক্রাইব করে নিয়ে তাদের সাথে নিয়মতভাবে একটি Communication তৈরি করে নিতে পারেন। আপনার ব্লগেও Subscribe অপশনটা ব্যবহার করে অন্যদের-কে আপনার ব্লগটি Subscribe করার সুযোগ করে দিতে পারেন।

কিছু ফ্রি অপশন প্রদান করাঃ

আপনি একটা জিনিস মনে রাখবেন, পাঠকরা সবসময় ফ্রি জিনিস সহজে পেতে পছন্দ করে। তারা সব সময় চাইবে কারো ব্লগ থেকে ফ্রিতে ভালমানের কিছু ডাউনলোড করে নিতে। ধরুন আপনার ব্লগে Blogger Template, WordPress Theme এবং আপনার নিজের লিখা বিভিন্ন ই-বুক টাকার বিনিময়ে শেয়ার করেন। এ ক্ষেত্রে আপনি যদি সবগুলি টাকার বিনিময়ে বিক্রি করেন, তাহলে পাঠকরা আপনার ব্লগটি ভিজিট করা থেকে বিরত থাকবে। কারণ তাদের মনে একটা ধারনা হয়ে যাবে, এই ব্লগে টাকা ছাড়া কিছুই নেয়া যায় না। সেই জন্য আপনার উচিত হবে মাঝে মধ্যে কম গুরুত্বপূর্ণ জিনিসগুলি বিনা মূল্যে সবাইকে ডাউনলোড করার সুযোগ তৈরি করে দেয়া। এ বিষয়টি আপনার ব্লগকে পাঠকের কাছে জনপ্রিয় এবং গরুত্বপূর্ণ করে তুলবে।

Social Media Promote করাঃ

বর্তমান সময়ে ওয়েব ডেভেলপাররা ব্লগের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি এবং সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের ক্ষেত্রেও সোসিয়াল মিডিয়াকে বিশেষভাবে গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। কারন বিভিন্ন সোসিয়াল মিডিয়া ব্যবহারকারীর সংখ্যা এত বেশী যে, এটি কোন ব্যবসা বা প্রতিষ্ঠানের পন্যের প্রচার-প্রসার এবং জনপ্রিয়তা বৃদ্ধিতে অনেক ভূমিকা পালন করে। বিশেষকরে Facebook এবং Twitter এ আপনার ব্লগের জন্য একটি করে Fan Page তৈরি করে Fan বৃদ্ধি করে নিয়মিতভাবে ব্লগের বিভিন্ন পোষ্ট শেয়ার করার মাধ্যমে ব্লগের জনপ্রিয়তা এবং ট্রাফিক দুটিই বৃদ্ধি করতে পারবেন। তাছাড়াও Facebook এ একটি Group তৈরি করে সেখানে মেম্বার বৃদ্ধির মাধ্যমেও আলোচনা-সমালোচনা করে বিভিন্ন সমস্যার সমাধান প্রদানের মাধ্যমে ব্লগের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি করতে পারেন।

সর্বশেষঃ উপরের সবগুলি বিষয় আপনার ব্লগের ট্রাফিক বৃদ্ধি, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এবং জনপ্রিয়তা বৃদ্ধিতে বিশেষভাবে অবদান রাখবে। আপনি যদি ব্লগের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি করে ব্লগের গ্রহনযোগ্যতা বাড়াতে পারেন, তাহলে আপনার ব্লগটি এক সময় সবার কাছে ব্রান্ড হয়ে যাবে। তখন ব্লগের ট্রাফিক এবং ব্লগ থেকে আয় করা কোনটি নিয়ে আপনাকে চিন্তা করতে হবে না। কারণ যখন আপনার ব্লগটি সবার কাছে পরিচিত হয়ে যাবে, তখন পাঠক ব্লগটিতে সরাসরি ব্লগের লিংক ব্যবহার করে নিয়মিতভাবে ভিজিট করতে থাকবে। এ জন্য সবাইকে ব্লগের SEO করার পাশাপাশি জনপ্রিয়তা বৃদ্ধির কৌশলগুলি যথাযথভাবে অনুসরণ করা প্রয়োজন।
Subcribe to our all updates

and Share on
পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট

8 টি মন্তব্য: Post Yours! Read Comment Policy ▼
লক্ষ্য করুনঃ
পোষ্টের সাথে সম্পৃক্ত নয় এমন কোন কমেন্ট করা যাবে না। কোন কারণ ব্যতীত আপনার ব্লগের লিংক শেয়ার করতে যাবেন না। সবসময় গঠনমূলক মন্তব্য প্রদানের চেষ্টা করবেন। আমরা সবার মতামত সমানভাবে মূল্যায়ন করি এবং যথাসময়ে প্রতি উত্তর দেয়ার চেষ্টা করি।

  1. ধন্যবাদ ভাই। খুব ভালো লাগল।

    উত্তরমুছুন
  2. এটা আমার পারসোনাল ব্লগ ব্লাগার দিয়ে করা আপনাদের মূল্যবান মতামত আশা করছি..........?
    www.mhsujon.com

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. আপনার টেমপ্লেটটি MS Design থেকে নেয়া। এটি অবশ্যই ভাল একটি টেমপ্লেট। কারন MS Design এর এ্যাডমিন মিঃ সুবেল সবসময় ভালমানের টেমপ্লেট শেয়ার করে থাকেন।

      মুছুন

 
Subscribe for all Updates

Subscribe Now

কপিরাইট © 2015- প্রযুক্তি ডট কম ™, সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত

Powered by: